আর্কাইভ | বি.এন.পি সংবাদ RSS feed for this section

খালেদা জিয়াকে বুড়িচং উপজেলা বিএনপির শুভেচ্ছা

10 নভে.

১০ নভেম্বর দৈনিক কুমিল্লার কাগজ পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ-

গত শুক্রবার ৯ নভেম্বর ১২ সন্ধ্যায় বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার রামু সফর কালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের কোরপাই এসে পৌঁছলে বুড়িচং উপজেলা বিএনপি, যুবদল, সেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন
উপজেলা বিএনপির উপদেষ্টা রফিজ উদ্দিন চেয়ারম্যান, মোকাম ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সভাপতি মো: মফিজুল ইসলাম, ৪ নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি শহিদুল্লা ভূইয়া, উপজেলা সেচ্ছাসেবক দল সভাপতি মনিরুল ইসলাম ভূইয়া, সেক্রেটারী মো: নজরুল ইসলাম ভূইয়া, উপজেলা যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক আবু নাসের, প্রচার সম্পাদক আবু জাহের সিপু, সেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতি মোশারফ হোসেন, আবুল কালাম আজাদ মুন্সি, সোহেল ভূইয়া, বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি মো: জহিরুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক খোরশেদ আলম, মোকাম ইউনিয়ন যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, মোকাম ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক কামরুল হাসান, যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুস ছাত্তার ফকির, বাকশীমূল ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহ্বায়ক বিল্রাল চৌধূরী, ভারেল্লা দক্ষিণ সেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতি মো: আজাদ, ছাত্রদল নেতা মনির হোসেন জয়, মোকাম ইউনিয়ন ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক ইউনুস আহাম্মেদ, যুগ্ম আহ্বায়ক তফলিম উদ্দিন, জুবায়ের আহাম্মেদ, শাহ জালাল, ইসহাক সহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ ও সমর্থকবৃন্দ।

খালেদা জিয়াকে বুড়িচং উপজেলা বিএনপির শুভেচ্ছা

10 নভে.

১০ নভেম্বর দৈনিক কুমিল্লার কাগজ পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ-

গত শুক্রবার ৯ নভেম্বর ১২ সন্ধ্যায় বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার রামু সফর কালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের কোরপাই এসে পৌঁছলে বুড়িচং উপজেলা বিএনপি, যুবদল, সেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন
উপজেলা বিএনপির উপদেষ্টা রফিজ উদ্দিন চেয়ারম্যান, মোকাম ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সভাপতি মো: মফিজুল ইসলাম, ৪ নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি শহিদুল্লা ভূইয়া, উপজেলা সেচ্ছাসেবক দল সভাপতি মনিরুল ইসলাম ভূইয়া, সেক্রেটারী মো: নজরুল ইসলাম ভূইয়া, উপজেলা যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক আবু নাসের, প্রচার সম্পাদক আবু জাহের সিপু, সেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতি মোশারফ হোসেন, আবুল কালাম আজাদ মুন্সি, সোহেল ভূইয়া, বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি মো: জহিরুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক খোরশেদ আলম, মোকাম ইউনিয়ন যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, মোকাম ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক কামরুল হাসান, যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুস ছাত্তার ফকির, বাকশীমূল ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহ্বায়ক বিল্রাল চৌধূরী, ভারেল্লা দক্ষিণ সেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতি মো: আজাদ, ছাত্রদল নেতা মনির হোসেন জয়, মোকাম ইউনিয়ন ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক ইউনুস আহাম্মেদ, যুগ্ম আহ্বায়ক তফলিম উদ্দিন, জুবায়ের আহাম্মেদ, শাহ জালাল, ইসহাক সহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ ও সমর্থকবৃন্দ।

ব্রাহ্মণপাড়ায় বিএনপির ৪ নেতার আলোচনা সভা

5 নভে.

কুমিল্লার দৈনিক পূর্বাশা এবং রূপসী বাঙলা পত্রিকায় ৪ নভেম্বর ২০১২ তারিখে প্রকাশিত সংবাদ :-
ইসমাইল নয়ন এবং আবদুল আলীম খার, ব্রাহ্মণপাড়া-কুমিল্লা ।
    কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা বিএনপির আলোচনা সভা গত শনিবার ০৩ নভেম্বর উপজেলা সদরের নাইঘর মোড় সংলগ্ন ছাত্রদল নেতা আহসানের বাড়ীতে অনুষ্ঠিত হয়।
    সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া) সংসদীয় আসনের ৪বারের এমপি অধ্যাপক মো: ইউনুস,
বিশেষ অতিথি ছিলেন এই আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান মজু, কেন্দ্রীয় কৃষক দলের সহসভাপতি ও এই আসনে ২বার বিএনপি থেকে নমিনেশন প্রাপ্ত এস.এস.এম আলাউদ্দিন ভুইয়া, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সহসাংগঠনিক সম্পাদক ও ব্রাহ্মণপাড়া বিএনপির সাবেক সভাপতি জসিম উদ্দিন জসিম, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তাহমিনা হক পপি, সভাপতিত্ব করেন সাহেবাবাদ ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ফরিদ উদ্দিন ডিলার, পরিচালনা করেন মো: নজরুল ইসলাম, উপসি’ত ছিলেন বিএনপি নেতা নূরে আলম, রফিকুল ইসলাম, আবদুল হান্নান, মফিজুল ইসলাম, মানিক মিয়া ডিলার, আবু তাহের, রবি উল্লাহ রবি, সানাউল হক, এনায়েত করিম ভুইয়া, বাদল ভুইয়া, ডা: মনিরুজ্জামান, মোস্তফা, রকিব উদ্দিন, আবু কাউছার, মোর্শেদ আলম, আবদুল্লাহ আল মামুন, আহসান, হুমায়ুন কবির, আমানত খাঁ, অপু, কামাল হোসেন, জামাল মইশান, জসিম হোসেন, গাজী ইস্রাফিল, আবুল বাশার, দুলাল ডাক্তার, আবুল বাশার, জামাল হোসেন, নয়ন, জাপানী শফিক, মোস্তফা জামান, আবদুল জলিল, রুহুল আমীন ভ’ইয়া বাদল, মোকবল হোসেন মালু, শহিদ মেম্বার, এরশাদ সহ উপজেলা ও ইউনিয়ন বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীগণ। এসময় ব্রাহ্মণপাড়া বিএনপির বিশিষ্ট ৪ নেতাকে এক মঞ্চে পেয়ে এই এলাকার বিএনপির নেতাকর্মীরা আনন্দে উদ্বেলিত হয়ে আবেগ প্রবন বক্তব্য পেশ করেন। তারা বলেন রাজনীতি মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার। এখানে গণতন্ত্র চর্চা না থাকলে ওই নেতার নিকট মানুষ কিছুই আশা করতে পারেনা। একজন নেতার মধ্যে যদি ক্ষমতা অপব্যবহারের অভ্যাস থাকে তাহলে তাকে নেতা বলে আমরা মানিনা। যারা দীর্ঘদিন এই এলাকার মানুষের সুখে দুখে পাশে ছিল তাদেরকে আমাদের ভবিষ্যৎ নেতা হিসেবে পেতে চাই। জবাবে প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, গণতান্ত্রিক মতের আদর্শে দেশের ক্রান্তিলগ্নে বিএনপির জন্ম। অগণতান্ত্রিক ভাবে কেউ নেতা হতে চাইলে তাকে জনগন এবং আমরা কেউ মেনে নেব না। অতিথি পাখির মত আবির্ভুত একজন এই এলাকার নেতা হতে চাইছে। তাতে আমাদের কোন আপত্তি নেই, আপত্তি হচ্ছে এই যায়গায়, নেতাকর্মীদের সমন্বয়ক হিসেবে এসে, মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে, নেতাকর্মীদেরকে বিভ্রান্তিতে ফেলে, অপরাজনীতিতে জড়িয়ে নিজেই তিনি গ্রুপিং সৃষ্টি করে এই এলাকার বিএনপির রাজনীতিকে কুলসিত করছেন। এখন তাকে সমন্বয় করার জন্য অন্য নেতার আবির্ভাব প্রয়োজন। রুগীর চিকিৎসা করতে এসে ডাক্তার অসুস’্য হয়ে গেছেন, রুগী এখন ডাক্তারের সেবা করতে হচ্ছে। তিনি একজন ভাল সাংবাদিক হতে পারেন রাজনৈতিক নেতা হিসেবে তার অজ্ঞতা রয়েছে। নেতাকর্মীদেরকে মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে বিদেধ সৃষ্টি করে তার প্রতি কিছু নেতাকর্মীর সমর্থন নিয়ে এই এলাকার বিএনপির নেতাকর্মীদের মাঝে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করেছেন। ওই নেতাকর্মীরা এখন নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষায় নিজের পকেটের পয়সা খরচ করে গ্রুপিং করে যাচ্ছেন। এতে এই এলাকার বিএনপির রাজনীতিতে ক্ষতি হচ্ছে। তিনি বলেন, ব্যক্তির চেয়ে দল বড়। নিজের অবৈধ আবদারের জন্য দলের ক্ষতি না করে আমাদের সাথে যোগ দিয়ে মানুষের জন্য গণতান্ত্রিক ভাবে রাজনীতি করুন এতে সকলেরই ভাল হবে। সাবেক সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান মজু বলেন, শওকত মাহমুদ এই আসনের নমিনেশন নিয়ে আসবেন- এরূপ গুজব ছড়িয়ে মানুষের সমর্থন নেয়ার চেষ্টা করছেন। এটা একেবারে মিথ্যা কথা, কদিন পূর্বে তিনি দলের চেয়ার পার্সনের সাথে মতবিনিময় করেছেন, সেখানে চেয়ার পার্সন বলেছেন, আপনাকে ওই এলাকার সমন্বয়ক হিসেবে পাঠিয়েছি, রাজনীতি করতে ইচ্ছে হলে স’ানীয়দের সাথে মিশে দলের জন্য কাজ করুন। নমিনেশন কাকে দেবো তা সময়ই বলে দেবে। এই কথা আমাদের নিকট রেকর্ড রয়েছে। অথচ তিনি এসব কথা প্রচার না করে মিথ্যা কথা বলে নেতাকর্মীদেরকে বিভ্রান্তি করছেন। ম্যাডাম শুধু উনার একার নয়, উনাকে ছাড়া এমন লোক এই এলাকায় আছে যারা জিয়া পরিবারের সক্রিয় সদস্য। যাকে নমিনেশন দিলে এই আসন রক্ষা হবে, দল তাকেই সময় মত নমিনেশন দেবে। আপনারা মিথ্যা কথায় বিভ্রান্ত হবেন না। আমরা এক হয়ে মাঠে নেমেছি, সুখে দুখে আপনাদের পাশেই থাকবো। শীঘ্রই কমিটি গঠনের মাধ্যমে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে এক মঞ্চে আমরা আপনাদের সাথে মতবিনিময় করবো।

ব্রাহ্মণপাড়ায় বিএনপির ৪ নেতার আলোচনা সভা

5 নভে.

কুমিল্লার দৈনিক পূর্বাশা এবং রূপসী বাঙলা পত্রিকায় ৪ নভেম্বর ২০১২ তারিখে প্রকাশিত সংবাদ :-
ইসমাইল নয়ন এবং আবদুল আলীম খার, ব্রাহ্মণপাড়া-কুমিল্লা ।
    কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা বিএনপির আলোচনা সভা গত শনিবার ০৩ নভেম্বর উপজেলা সদরের নাইঘর মোড় সংলগ্ন ছাত্রদল নেতা আহসানের বাড়ীতে অনুষ্ঠিত হয়।
    সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া) সংসদীয় আসনের ৪বারের এমপি অধ্যাপক মো: ইউনুস,
বিশেষ অতিথি ছিলেন এই আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান মজু, কেন্দ্রীয় কৃষক দলের সহসভাপতি ও এই আসনে ২বার বিএনপি থেকে নমিনেশন প্রাপ্ত এস.এস.এম আলাউদ্দিন ভুইয়া, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সহসাংগঠনিক সম্পাদক ও ব্রাহ্মণপাড়া বিএনপির সাবেক সভাপতি জসিম উদ্দিন জসিম, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তাহমিনা হক পপি, সভাপতিত্ব করেন সাহেবাবাদ ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ফরিদ উদ্দিন ডিলার, পরিচালনা করেন মো: নজরুল ইসলাম, উপসি’ত ছিলেন বিএনপি নেতা নূরে আলম, রফিকুল ইসলাম, আবদুল হান্নান, মফিজুল ইসলাম, মানিক মিয়া ডিলার, আবু তাহের, রবি উল্লাহ রবি, সানাউল হক, এনায়েত করিম ভুইয়া, বাদল ভুইয়া, ডা: মনিরুজ্জামান, মোস্তফা, রকিব উদ্দিন, আবু কাউছার, মোর্শেদ আলম, আবদুল্লাহ আল মামুন, আহসান, হুমায়ুন কবির, আমানত খাঁ, অপু, কামাল হোসেন, জামাল মইশান, জসিম হোসেন, গাজী ইস্রাফিল, আবুল বাশার, দুলাল ডাক্তার, আবুল বাশার, জামাল হোসেন, নয়ন, জাপানী শফিক, মোস্তফা জামান, আবদুল জলিল, রুহুল আমীন ভ’ইয়া বাদল, মোকবল হোসেন মালু, শহিদ মেম্বার, এরশাদ সহ উপজেলা ও ইউনিয়ন বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীগণ। এসময় ব্রাহ্মণপাড়া বিএনপির বিশিষ্ট ৪ নেতাকে এক মঞ্চে পেয়ে এই এলাকার বিএনপির নেতাকর্মীরা আনন্দে উদ্বেলিত হয়ে আবেগ প্রবন বক্তব্য পেশ করেন। তারা বলেন রাজনীতি মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার। এখানে গণতন্ত্র চর্চা না থাকলে ওই নেতার নিকট মানুষ কিছুই আশা করতে পারেনা। একজন নেতার মধ্যে যদি ক্ষমতা অপব্যবহারের অভ্যাস থাকে তাহলে তাকে নেতা বলে আমরা মানিনা। যারা দীর্ঘদিন এই এলাকার মানুষের সুখে দুখে পাশে ছিল তাদেরকে আমাদের ভবিষ্যৎ নেতা হিসেবে পেতে চাই। জবাবে প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, গণতান্ত্রিক মতের আদর্শে দেশের ক্রান্তিলগ্নে বিএনপির জন্ম। অগণতান্ত্রিক ভাবে কেউ নেতা হতে চাইলে তাকে জনগন এবং আমরা কেউ মেনে নেব না। অতিথি পাখির মত আবির্ভুত একজন এই এলাকার নেতা হতে চাইছে। তাতে আমাদের কোন আপত্তি নেই, আপত্তি হচ্ছে এই যায়গায়, নেতাকর্মীদের সমন্বয়ক হিসেবে এসে, মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে, নেতাকর্মীদেরকে বিভ্রান্তিতে ফেলে, অপরাজনীতিতে জড়িয়ে নিজেই তিনি গ্রুপিং সৃষ্টি করে এই এলাকার বিএনপির রাজনীতিকে কুলসিত করছেন। এখন তাকে সমন্বয় করার জন্য অন্য নেতার আবির্ভাব প্রয়োজন। রুগীর চিকিৎসা করতে এসে ডাক্তার অসুস’্য হয়ে গেছেন, রুগী এখন ডাক্তারের সেবা করতে হচ্ছে। তিনি একজন ভাল সাংবাদিক হতে পারেন রাজনৈতিক নেতা হিসেবে তার অজ্ঞতা রয়েছে। নেতাকর্মীদেরকে মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে বিদেধ সৃষ্টি করে তার প্রতি কিছু নেতাকর্মীর সমর্থন নিয়ে এই এলাকার বিএনপির নেতাকর্মীদের মাঝে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করেছেন। ওই নেতাকর্মীরা এখন নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষায় নিজের পকেটের পয়সা খরচ করে গ্রুপিং করে যাচ্ছেন। এতে এই এলাকার বিএনপির রাজনীতিতে ক্ষতি হচ্ছে। তিনি বলেন, ব্যক্তির চেয়ে দল বড়। নিজের অবৈধ আবদারের জন্য দলের ক্ষতি না করে আমাদের সাথে যোগ দিয়ে মানুষের জন্য গণতান্ত্রিক ভাবে রাজনীতি করুন এতে সকলেরই ভাল হবে। সাবেক সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান মজু বলেন, শওকত মাহমুদ এই আসনের নমিনেশন নিয়ে আসবেন- এরূপ গুজব ছড়িয়ে মানুষের সমর্থন নেয়ার চেষ্টা করছেন। এটা একেবারে মিথ্যা কথা, কদিন পূর্বে তিনি দলের চেয়ার পার্সনের সাথে মতবিনিময় করেছেন, সেখানে চেয়ার পার্সন বলেছেন, আপনাকে ওই এলাকার সমন্বয়ক হিসেবে পাঠিয়েছি, রাজনীতি করতে ইচ্ছে হলে স’ানীয়দের সাথে মিশে দলের জন্য কাজ করুন। নমিনেশন কাকে দেবো তা সময়ই বলে দেবে। এই কথা আমাদের নিকট রেকর্ড রয়েছে। অথচ তিনি এসব কথা প্রচার না করে মিথ্যা কথা বলে নেতাকর্মীদেরকে বিভ্রান্তি করছেন। ম্যাডাম শুধু উনার একার নয়, উনাকে ছাড়া এমন লোক এই এলাকায় আছে যারা জিয়া পরিবারের সক্রিয় সদস্য। যাকে নমিনেশন দিলে এই আসন রক্ষা হবে, দল তাকেই সময় মত নমিনেশন দেবে। আপনারা মিথ্যা কথায় বিভ্রান্ত হবেন না। আমরা এক হয়ে মাঠে নেমেছি, সুখে দুখে আপনাদের পাশেই থাকবো। শীঘ্রই কমিটি গঠনের মাধ্যমে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে এক মঞ্চে আমরা আপনাদের সাথে মতবিনিময় করবো।